যে শিল্পীরা ইসরায়েলকে বয়কট করেছেন, যাঁরা করেননি

যে শিল্পীরা ইসরায়েলকে বয়কট করেছেন, যাঁরা করেননি

ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রতিবাদে কয়েকজন শিল্পী সে দেশে কনসার্ট বাতিল করেছেন৷ তবে কনসার্ট বাতিলের অনুরোধ না শোনা শিল্পীও আছেন৷

রজার ওয়াটার্স

জার্মানির কয়েকটি সরকারি প্রচারমাধ্যম ‘ইহুদি বিদ্বেষের অভিযোগ’ ওঠায় পিংক ফ্লয়েডের সাবেক সদস্য রজার ওয়াটার্সের কনসার্ট প্রচার না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ ওয়াটার্স ফিলিস্তিনি নেতৃত্বাধীন সংগঠন ‘বয়কট, ডাইভেস্টমেন্ট অ্যান্ড স্যানকশান মুভমেন্ট’ বা বিডিএস-এর সদস্য৷ ফিলিস্তিনি অঞ্চল দখলের অভিযোগে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে বয়কটের আহ্বান জানায় সংগঠনটি৷ কনসার্টে অংশ না নিতে শিল্পীদের প্রতি আহ্বান তেমন একটি৷

ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রতিবাদে কয়েকজন শিল্পী সে দেশে কনসার্ট বাতিল করেছেন৷ তবে কনসার্ট বাতিলের অনুরোধ না শোনা শিল্পীও আছেন৷

কেট টেম্পেস্ট

ব্রিটিশ এই ব়্যাপার ‘আর্টিস্টস ফর প্যালেস্টাইন’-এর সমর্থক৷ ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের নেয়া পদক্ষেপে তিনি মর্মাহত বলে জানিয়েছেন৷ ‘‘অনেক ভাবনাচিন্তার পর আমি বিক্ষোভ প্রদর্শনের লক্ষ্যে এই সাংস্কৃতিক বয়কটে যোগ দিয়েছি,’’ বলেন তিনি৷ তবে তাঁর বিরুদ্ধে যাঁরা ইহুদি বিদ্বেষের অভিযোগের এনেছেন তাঁদের টেম্পেস্ট মনে করিয়ে দিয়েছেন যে, তিনি নিজেই একজন ইহুদি বংশোদ্ভূত৷

ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রতিবাদে কয়েকজন শিল্পী সে দেশে কনসার্ট বাতিল করেছেন৷ তবে কনসার্ট বাতিলের অনুরোধ না শোনা শিল্পীও আছেন৷

এলভিস কস্টেলো

২০১০ সালে ইসরায়েলে তাঁর একটি কনসার্ট বাতিল করেছিলেন ব্রিটিশ এই মিউজিশিয়ান৷ এর কারণ হিসেবে তিনি সেই সময় তাঁর ওয়েবসাইটে লিখেছিলেন, জাতীয় নিরাপত্তার নামে ফিলিস্তিনিদের উপর যে নিপীড়ন চালানো হচ্ছে তার প্রতিবাদ করা ‘বিবেক’-এর বিষয়৷

ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রতিবাদে কয়েকজন শিল্পী সে দেশে কনসার্ট বাতিল করেছেন৷ তবে কনসার্ট বাতিলের অনুরোধ না শোনা শিল্পীও আছেন৷

জনি রোটেন

এলভিস কস্টেলো ইসরায়েলে কনসার্টটি বাতিল করার পর সেখানে কনসার্টে গিয়েছিলেন জনি রোটেন৷ কারণ হিসেবে বলেছিলেন, ‘‘গণতন্ত্র আছে এমন এক আরব রাষ্ট্র, এক মুসলিম দেশ না দেখা পর্যন্ত, ফিলিস্তিনিদের প্রতি আচরণ সম্পর্কে কারও সমস্যা থাকার বিষয়টি আমি বুঝবো না৷’’

ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রতিবাদে কয়েকজন শিল্পী সে দেশে কনসার্ট বাতিল করেছেন৷ তবে কনসার্ট বাতিলের অনুরোধ না শোনা শিল্পীও আছেন৷

ডেপেশ মোড

২০১৩ সালে ‘ডেল্টা মেশিন টুর’-এর এক পর্যায়ে তেল আভিভে গিয়েছিল ব্রিটিশ এই ব্যান্ড দল৷ সফরের প্রতিদিনকার খবর অনলাইনে জানিয়েছিল তাঁরা৷ কিন্তু তেল আভিভের বিষয়ে একেবারে চুপ ছিল ডেপেশ মোড৷ তাহলে কি ঐখানে কনসার্ট করা নিয়ে লজ্জিত ছিল তাঁরা? ২০০৬ সালে লেবানন যুদ্ধের সময় রাজনৈতিক কারণ দেখিয়ে ইসরায়েলে একটি কনসার্ট বাতিল করেছিল ব্রিটিশ এই ব্যান্ড৷

ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রতিবাদে কয়েকজন শিল্পী সে দেশে কনসার্ট বাতিল করেছেন৷ তবে কনসার্ট বাতিলের অনুরোধ না শোনা শিল্পীও আছেন৷

এল্টন জন

২০১০ ও ২০১৬ সালে তেল আভিভে কনসার্টের আগে সেখানে না যেতে এল্টন জনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিল বিডিএস৷ কিন্তু তাতে কাজ হয়নি৷ বরং তিনি দর্শকদের হিব্রু শব্দ ‘শালম’ বলে স্বাগত জানিয়েছিলেন৷ এর অর্থ ‘শান্তি’৷ ‘‘আমরা এই মঞ্চে শান্তি আর ভালোবাসা ছড়াচ্ছি৷ আর আমরা এখানে থাকতে পেরে খুশি,’’ বলেন তিনি৷

ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রতিবাদে কয়েকজন শিল্পী সে দেশে কনসার্ট বাতিল করেছেন৷ তবে কনসার্ট বাতিলের অনুরোধ না শোনা শিল্পীও আছেন৷

রেডিওহেড

২০১৭ সালের জুলাইতে ইসরায়েলে কনসার্টের আগে সেখানে না যেতে ব্রিটিশ এই ব্যান্ডের উপর প্রচুর চাপ সৃষ্টি করা হয়েছিল৷ ডেসমন্ড টুটুসহ অনেকে তাঁকে অনুরোধ করেছিলেন৷ কিন্তু ব্যান্ডের গায়ক থম ইয়র্ক বলেছিলেন, ‘‘অনেকে আছেন যাঁরা বিডিএস মুভমেন্টের সঙ্গে একমত নন৷ আমরাও আছি তাদের মধ্যে৷ আমি কোনো ধরনের সাংস্কৃতিক নিষেধাজ্ঞার পক্ষে নই৷’’

ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের প্রতিবাদে কয়েকজন শিল্পী সে দেশে কনসার্ট বাতিল করেছেন৷ তবে কনসার্ট বাতিলের অনুরোধ না শোনা শিল্পীও আছেন৷

ব্রায়ান অ্যাডামস

চলতি মাসে ইসরায়েলে কনসার্ট না করতে অ্যাডামসকে আহ্বান জানিয়েছিল বিডিএস৷ তবে তাতে কাজ হয়নি৷ এর আগে অবশ্য একবার তিনি গাজায় চলা যুদ্ধকে মানবতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ বলে আখ্যায়িত করেছিলেন৷

Please follow and like us:

About author

Related Articles

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Enjoy this blog? Please spread the word :)