সর্বশেষ সংবাদ
January 20, 2018 - রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় আরো সহায়তা প্রয়োজন : বিশ্বব্যাংক
January 20, 2018 - রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নে কাজ চলছে -বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান
January 20, 2018 - যথাসময়ে সহায়ক সরকারের রূপরেখা দেবে বিএনপি : মির্জা আলমগীর
January 20, 2018 - রফতানি প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বাড়াতে উৎপাদনের গুণগতমান নিশ্চিত করুন : রাষ্ট্রপতি
January 20, 2018 - হকার পুনর্বাসনে ডিএসসিসি’র নতুন প্রকল্প
January 20, 2018 - যুক্তরাষ্ট্রে ট্রাম্প-সেনেট দ্বন্দ্বে কেন্দ্রীয় সরকারি সেবা বন্ধ
January 19, 2018 - নির্দয় শাসকগোষ্ঠীর নির্মম শিকলে বন্দি জনগণ
January 19, 2018 - সকল সেক্টরে নারীদের অংশগ্রহণ বাড়াতে হবে : স্পিকার
January 19, 2018 - বয়ঃসন্ধিকাল শুরু হচ্ছে আগে, শেষও হচ্ছে দেরিতে
January 19, 2018 - ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় জয়
রোহিঙ্গাদের হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগ এই প্রথম স্বীকার করলো মিয়ানমারের সেনাবাহিনী

রোহিঙ্গাদের হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগ এই প্রথম স্বীকার করলো মিয়ানমারের সেনাবাহিনী

গত অগাস্ট মাসে রাখাইনে নতুন করে সহিংসতা শুরুর পর থেকে প্রতিবেশী বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে সাড়ে ছয় লাখ রোহিঙ্গা।
মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এই প্রথমবারের মত স্বীকার করেছে যে, রাখাইন রাজ্যে সাম্প্রতিক সহিংসতায় রোহিঙ্গা মুসলিমদের হত্যায় জড়িত ছিল দেশটির সেনা সদস্যরা।

সেনাবাহিনী বলছে, এক তদন্তে উঠে এসেছে, নিরাপত্তা বাহিনীর চারজন সদস্য মংডুর কাছে ডিন গ্রামে দশজন মানুষকে হত্যার সাথে জড়িত রয়েছে। রিপোর্টে বলা হয়, ওই সেনা সদস্যরা রোহিঙ্গাদেরকে ‘বাঙ্গালি সন্ত্রাসী’ আখ্যা দিয়ে তাদের ওপরে হিংসাত্মক হামলা চালাতে স্থানীয় গ্রামবাসীদের সহায়তা করেছিল।

গত মাসে মিয়ানমার সেনাবাহিনী ডিন গ্রামে একটি গণকবরের ভেতর থকে ১০টি মাথার খুলি পাওয়ার পর সে বিষয়ে তদন্তের ঘোষণা দিয়েছিল। ওই তদন্ত শেষে উঠে আসা ফলাফল দেশটির সেনা কমান্ডার ইন চিফের ফেসবুক পাতায় দেয়া হয় এবং বলা হয় গত ২রা সেপ্টেম্বর ওই হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়েছিল।

সেখানে বলা হয়, ” এটা সদ্য যে গ্রামবাসী এবং নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা উভয়পক্ষই স্বীকার করেছে যে তারা ১০জন ‘বাঙ্গালি সন্ত্রাসী’কে হত্যা করেছে”।

এতে আরও বলা হয় এ ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সেনাবাহিনী । তবে সেখানে এও বলা হয় যে “এমন ঘটনা ঘটেছে কারণ সেখানে বৌদ্ধ সম্প্রদায় সন্ত্রাসীদের দ্বারা ভীত এবং প্ররোচিত হয়েছিল”।

তবে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে এ ধরনের স্বীকারোক্তি বিরল।

রাখাইনে জ্বালিয়ে দেয়া হয় রোহিঙ্গাদের আবাস
মিয়ানমারের বিরুদ্ধে রাখাইন রাজ্যে জাতিগত নির্মূল অভিযান চালানোর অভিযোগ রয়েছে।

গত অগাস্ট মাসে সেখানে নতুন করে সহিংসতা শুরুর পর থেকে প্রতিবেশী বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে সাড়ে ছয় লাখ রোহিঙ্গা।

ব্যাপক হত্যাযজ্ঞ, ধর্ষণ ও নির্যাতনের ঘটনার বর্ণনা উঠে এসেছে তাদের কাছ থেকে। তাদের অভিযোগ স্থানীয় বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের সমর্থনে সেনাবাহিনী তাদের গ্রাম পুড়িয়ে দিয়েছে এবং বহু বেসামরিক মানুষদের হত্যা করেছে। যদিও মিয়ানমারের সেনা কর্তৃপক্ষ বেসামরিক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সহিংসতার বিষয়টি অস্বীকার করেছে।

Please follow and like us:

About author

Related Articles

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Enjoy this blog? Please spread the word :)