সর্বশেষ সংবাদ
April 21, 2018 - বার্ষিক মানবিধিকার রিপোর্ট প্রকাশ, লঙ্ঘনের ঘটনা চরম খালেদা জিয়ার রায়ে নিরপেক্ষতা চায় যুক্তরাষ্ট্র: রাজনৈতিক কারণে কাউকে কারাদণ্ড নয়
April 21, 2018 - রোহিঙ্গা সংকট : বাংলাদেশের প্রতি কমনওয়েলথের সংহতি
April 21, 2018 - নির্বাচনকে ঘিরে সহিংসতা করলে কঠোর ব্যবস্থা
April 21, 2018 - পারমাণবিক এবং ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা বন্ধের সিদ্ধান্ত কেন নিলেন কিম জং আন
April 21, 2018 - সিরিয়া সংকটের কোনো সামরিক সমাধান নেই: জাতিসংঘ
April 21, 2018 - থ্রি়ডি প্রিন্টারেই কৃত্রিম অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ
April 20, 2018 - আমেরিকার দেয়া সম্মাননা পরবেন না প্রেসিডেন্ট আসাদ
April 20, 2018 - ইউটিউব ভিডিও’র মাধ্যমে ৪০ বছর পর স্বজনের কাছে ফেরালো
April 20, 2018 - বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে এশিয়ার রেকর্ড
April 20, 2018 - ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ফের রানওয়ে থেকে ছিটকে গেল বিমান
সদস্যভূক্ত দেশের সরকার ও দেশের মাঝে পরামর্শ এবং সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষ্যেই : কমনওয়েলথ

সদস্যভূক্ত দেশের সরকার ও দেশের মাঝে পরামর্শ এবং সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষ্যেই : কমনওয়েলথ

কমনওয়েলথের প্রধান আন্তঃসরকার সম্বন্ধীয় সংস্থা হিসেবে কমনওয়েলথ সচিবালয় ১৯৬৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সদস্যভূক্ত দেশের সরকার ও দেশের মাঝে পরামর্শ এবং সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষ্যেই এটি গঠিত হয়। সদস্যভূক্ত সরকারের কাছে এটি সামগ্রীকভাবে দায়বদ্ধ। পর্যবেক্ষক হিসেবে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে প্রতিনিধিত্ব করে থাকে।

মহাসচিব কমনওয়েলথ সম্মেলন, মন্ত্রীদের ঘিরে সভা আয়োজন, পরামর্শমূলক সভা, কারিগরী আলোচনার ব্যবস্থা নেন। সরকারের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে প্রয়োজনীয় কারিগরী সহাযোগিতাসহ কমনওয়েলথের মৌলিক রাজনৈতিক মূল্যের বিষয়েও সহায়তা করে থাকেন।

এর প্রধান হিসেবে রয়েছেন একজন মহাসচিব। চার বছর মেয়াদে তিনি সর্বাধিক দুইবার কমনওয়েলভূক্ত সরকার প্রধানদের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হন। তাঁকে সহযোগিতা করে দুইজন উপ-মহাসচিব। বর্তমান মহাসচিব হিসেবে রয়েছেন প্যাটিসিয়া স্কটল্যান্ড। প্যাটিসিয়া স্কটল্যান্ড প্রথম নারী মহাসচিব। প্রথম মহাসচিব ছিলেন কানাডার আর্নল্ড স্মিথ। এরপর গায়ানার স্যার শ্রীদাথ রামফাল, নাইজেরিয়ার এমেকা আনিয়াকু।

অতীতে ইংরেজ সম্রাজ্যভুক্ত ছিল এমন স্বাধীন জাতিসমূহ নিয়ে গঠিত হয় একটি আন্তর্জাতিক সংস্থা। বর্তমানে এই সংস্থার সদস্য সংখ্যা ৫২। এই সংস্থার সচিবালয় লন্ডনে অবস্থিত। ব্রিটেনই এর নেতৃত্ব দিয়ে থাকে। পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কমনওয়েলথ অব নেশন্স গঠিত হয়।

সম্প্রতি সময়ে লন্ডনে কমনওয়েলথ নেতারা একটি সম্মেলনে মিলিত হতে যাচ্ছেন। এখানে কমনওয়েলথ সম্পর্কে সাতটি তথ্য তুলে ধরা হল, যা হয়তো আপনি জানেন না।

১. বিশ্বের এক তৃতীয়াংশ মানুষের সংগঠন
বর্তমানে বিশ্বে মানুষের সংখ্যা সাতশো চল্লিশ কোটি। এর প্রায় এক তৃতীয়াংশ মানুষ, অর্থাৎ দুইশ চল্লিশ কোটি মানুষই কমনওয়েলথের আওতাভুক্ত দেশগুলোয় বাস করে। যাদের বেশিরভাগের বয়সই ত্রিশের নীচে। জনসংখ্যার দিক থেকে সবচেয়ে বড় দেশ ভারত। এই সংখ্যার অর্ধেক মানুষই ভারতে বাস করে।

২. অনেক সদস্য দেশ কখনোই ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অংশ ছিল না।
১৯৯৫ সালে মোজাম্বিক আর ২০০৯ সালে রোয়ান্ডা কমনওয়েলথের সদস্য হয়। কিন্তু দেশ দুটি কখনোই ব্রিটিশ কলোনি ছিল না।
তবে কয়েকবার সংগঠনটি তাদের সদস্যও হারিয়েছে। নির্বাচনে কারচুপি নিয়ে জিম্বাবুয়ের সদস্যপদ স্থগিত করা হলে, ২০০৩ সালে রবার্ট মুগাবে কমনওয়েলথ থেকে বেরিয়ে যান। ১৯৯৯ সালে সামরিক অভ্যুত্থানের জেরে পাকিস্তানের সদস্যপদ স্থগিত করা হয়। তবে সাড়ে চার বছর পর তারা আবার সেই পদ ফেরত পান। বর্ণবাদ নিয়ে সমালোচনার জেরে ১৯৬১ সালে কমনওয়েলথ থেকে সরে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ১৯৯৪ সালে তারা আবার এর সদস্য হয়। সর্বশেষ মালদ্বীপ ২০১৬ সালে কমনওয়েলথ থেকে বেরিয়ে যায়।

৩. মাত্র ১৬টি দেশের প্রধান রানী
ব্রিটেনের রানী এলিজাবেথ কমনওয়েলথ ভুক্ত মাত্র ১৬টি দেশের রাষ্ট্রপ্রধান হিসাবে রয়েছে। বাকি দেশগুলোর ছয়টিতে নিজেদের রাজা রয়েছে আর ৩১টি দেশ প্রজাতন্ত্র।

৪. বিশাল এলাকাজুড়ে বিস্তৃত
বিশ্বের চারভাগের একভাগ ভূমি কমনওয়েলথভুক্ত। সবচেয়ে বেশি ভূমি রয়েছে কানাডায়। ভারত ও অস্ট্রেলিয়ায় অনেক ভূমি রয়েছে। তবে বাকি দেশগুলোর বেশিরভাগই ছোট। প্রশান্ত মহাসাগরে ক্ষুদ্রাকৃতির কিছু দ্বীপ দেশও রয়েছে এই কমনওয়েলে।

৫. নাম পরিবর্তন
আধুনিক কমনওয়েলথ গঠিত হয় ১৯৪৯ সালে, যখন এর নাম থেকে ‘ব্রিটিশ’ শব্দটি সরিয়ে ফেলা হয়। ক্লাবের প্রধান হিসাবে রানীর প্রতি আনুগত্যের বাধ্যবাধকতাও প্রত্যাহার করা হয়। এ পর্যন্ত দুইজন এই সংগঠনের প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। একজন কিং জর্জ সিক্স আর রানী এলিজাবেথ দি সেকেন্ড। যদিও তারাই যে সবসময় এর প্রধান হবেন, সেই নিয়ম এখন আর নেই। তবে ধারণা করা হচ্ছে প্রিন্স অফ ওয়েলস ক্ষমতায় এলে তিনিও এর প্রধান হবেন। প্রতিষ্ঠাতা দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, ভারত, নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা আর যুক্তরাজ্য।

২০১২ সালের আগে কমনওয়েলথে কোন সংবিধান ছিল না। সমালোচকরা বলেন, কমনওয়েলথ হচ্ছে কলোনি-উত্তর একটি ক্লাব। তবে সমর্থকদের মতে, এটি সদস্য দেশগুলোর উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে।

৬. কমনওয়েলথের সবচেয়ে বড় অর্থনীতি
এই জোটের সবচেয়ে বড় অর্থনীতির দেশ যুক্তরাজ্য। ভারতও খুব তাড়াতাড়ি প্রথম ধাপের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এরপরেই রয়েছে কানাডা। সবচেয়ে ছোট অর্থনীতির মধ্যে রয়েছে টুভালু, নাউরু আর কিরিবাতি।

৭. অন্য কমনওয়েলথ
ফরাসি ভাষাভাষী দেশগুলোকে নিয়েও এরকম একটি জোট রয়েছে, যার নাম ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন অফ লা ফ্রানকোফোনি। সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে স্বাধীনতা পাওয়া দেশগুলোকে নিয়ে রয়েছে কমনওয়েলথ অফ ইন্ডিপেনডেন্ট স্টেটস, যা ১৯৯১ সালে গঠিত হয়।

Please follow and like us:

About author

Related Articles

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Enjoy this blog? Please spread the word :)